অলি খানকে বিসিএ সভাপতি নির্বাচিত করতে ঐক্য বদ্ধ কেটারিং নেটওয়ার্ক নেতৃবৃন্দ!!

প্রকাশিত: ৬:২৭ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৭, ২০২২

অলি খানকে  বিসিএ সভাপতি নির্বাচিত করতে ঐক্য বদ্ধ  কেটারিং  নেটওয়ার্ক নেতৃবৃন্দ!!

 ভয়াবহ কর্মী  সংন্কট থেকে স্পাইসি ইন্ডাস্ট্রি সুরক্ষার জন্য বিসিএ নির্বাচনে অলি খানকে সভাপতি নির্বাচিত করতে বিশেষ ; 

    মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত :

নিজস্ব প্রতিনিধি :কোভিড১৯ সৃষ্ট সংকটে বহুমুখী সমস্যায় জর্জরিত হয়ে পড়েছে বৃটেনের বৃহত্তর কেটারিং ইন্ডাস্ট্রি। বৃটিশ বাংলাদেশী কমিউনিটির সাফল্যের প্রতীক এই স্পাইসি বিজনেসে এখন দেখা দিয়েছে ভয়াবহ কর্মী সংন্কট । এ সংকট থেকে বাঁচাতে আগামী বিসিএ নির্বাচনে দক্ষ অভিজ্ঞ সত যোগ্য নেতা অলি খানকে বিসিএ সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে মনোনীত করতে বিগত ২০ জুলাই ২০২২ রোজ বুধবার রাত নয় ঘটিকার সময় লোটনের অভিজাত কমিউনিটি হলে এক মতবিনিময় ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়

উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বৃটেনের বৃটিশ বাংলাদেশী বিজনেস নেটওয়ার্কের বিশিষ্ট মুরব্বি হাজী আবুল হোসেইন এবং অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বিসিএ যুগ্ম চিপ ট্রেজারার ও এন্টোপনার, জননন্দিত টিভি উপস্হাপক জিয়া আলী সাহেব।

 

পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা জাইদ ইসলাম। এবং শুরুতে স্পাইসি শিল্পের কিংবদন্তি সদ্য প্রয়াত এনাম আলীর  অবিস্মরণীয় স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ মাওলানা সিদ্দিক আহমেদ৷ 
সভায় প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করেন, ;

বিজনেস প্লাটফর্ম এর অন্যতম নেতা বাংলাদেশ কেটারিং এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি ; এম কামাল ইয়াকুব।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  বিসিএ সভাপতি পদপ্রার্থী! বিসিএ সাবেক জেনারেল সেক্রেটারী গ্রেট বৃটেনের স্পাইসি শিল্পের সেলিব্রিটি সেফ এমবিই, অলি খান। তাঁর সাথে বিশেষ অতিথি হিসেবে যারা উপস্থিত ছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন ; বারনেট কাউন্সিলের সাবেক মেয়র এবং বিসিএ ‘র সাবেক জেনারেল সেক্রেটারী পারবেজ আহমদ মিল্টন কিন্সের সাবেক মেয়র দেলোয়ার আহমদ।
মহিবুর রহমান সহ সভাপতি বিসিএ।
এম এ মুমিন ছালিক, ফাউন্ডার এওয়ার্ড শেফ অনলাইন। শাহ আব্দুল মালিক (আজাদ) সিনয়র সহ সভাপতি বিসিএ সারে রিজন।
শেলু মিয়া বিসিএ সভাপতি মিডলেন্ড রিজন।
সবুর খান এমবিই।
কাউন্সিলর মুজিবুর রহমান খান। জনপ্রিয় সেলিব্রিটি সেফ আতিকুর রহমান,  বিবিবিএফ সহ সভাপতি  এ মালিক, আজিজ একাউটেন্ট কোম্পানি পরিচালক আজিজুল হক, এবং লেবার পার্টির বিশিষ্ট নেতা এবং আরাফাত নিউজ পত্রিকার ফাউন্ডার, সম্পাদক ও প্রকাশক সাংবাদিক মোহাম্মদ আনোয়ার হুসেইন। বিবিবিএফ সাবেক সভাপতি খলিলুর রহমান, সামাদ ট্রেভেল্সের পরিচালক আজাদ মিয়া, বিশিষ্ট বিজনেস এন্টোপনার অবসরপ্রাপ্ত ড্রাইভিং Instructor Motin Miah, আফ ট্রেভেল্স এর পরিচালক নূরুল হক
সহ বৃটেনের বিভিন্ন শহর থেকে আগত স্পাইসি বিজনেস নেটওয়ার্কের অসংখ্য নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশে স্বাগতম বক্তব্য রাখেন; বৃটিশ বাংলাদেশী বিজনেস ফোরামের জেনারেল সেক্রেটারী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী খলিলুর রহমান এবং বিশিষ্ট সমাজসেবক সেলিম আহমদ। বিশেষ অতিথি বৃন্দের পক্ষ হতে স্পাইসি ইন্ডাস্ট্রির নানা রকমের ভয়াবহ সংন্কট গুলো তুলে ধরে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন যারা তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন
এ কে চৌধুরী সহ সভাপতি বিসিএ, বিবিবিএফ সহ সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এম এ মালিক, এস আর চৌধুরী বিজনেস এন্টপনার, শুরুক মিয়া, জিলানী আহমদ, সহ অনেক নেতৃবৃন্দ। প্রধান অতিথি
কেটারিং ইন্ডাস্ট্রির ভয়াবহ কর্মী সংন্কটের কথা তুলে ধরে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন এবং বলেন ; দুঃখের বিষয় এখন পর্যন্ত
দক্ষ অভিজ্ঞ কর্মী সংন্কটের কারনে শত শত রেষ্টুরেন্ট বন্ধ হয়ে যাচ্ছে কিন্তু সরকার এ সংন্কট নিরসনে যথাযথ ব্যবস্হা নিচ্ছে না। 
রেষ্টুরেন্টর কর্মী সংন্কটের কারনে কেউ কেউ নিরুপায় হয়ে রেষ্টুরেন্ট বিক্রি করে অন্য ব্যবসা করতে বাদ্য হচ্ছেন। তিনি বলেন এ শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে সরকারি বেসরকারি ভাবে এর মারাত্মক সমস্যা গুলো চিহ্নিত করে সেই সমস্যা সমাধান করতে হবে। তার জন্য সর্ব প্রথম পরিকল্পনা গ্রহণ এবং সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করার জন্য শক্তি শালী সত যোগ্য নেতৃত্ব সৃষ্টি করতে হবে। 
বক্তৃতা গন বলেন ; অলি খান হলেন বৃটিশ বাংলাদেশী কেটারিং বিজনেস নেটওয়ার্ক জগতের ঐক্যের প্রতীক এবং সেলিব্রিটি সেফ। তার মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে নেতৃত্ব দান করার মতো চমৎকার প্রতিভা এবং কারী শিল্পের অসাধারণ দক্ষতা অভিজ্ঞতা। শুধু তাই নয় কেটারিং বিজনেস নেটওয়ার্ক জগতের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে তার রয়েছে গভীর সম্পর্ক। বিজনেস নেটওয়ার্ক জগতের নেতৃবৃন্দেরও রয়েছে তার উপর দৃঢ় বিশ্বাস এবং সমর্থন। অতীতের দিন গুলিতে আমরা দেখেছি 
দক্ষতা অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে তিনি বিসিএ সাবেক জেনারেল সেক্রেটারীর নেতৃত্ব দান করে নেতৃবৃন্দকে ঐক্য বদ্ধ করে এ শিল্পের উন্নয়ন বিকাশ সাধনে যুগান্তকারী ভূমিকা পালন করেছেন।

অতএব আগামী বিসিএ নির্বাচনে অলি খানকে সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত করতে পারলে এ শিল্পের ভয়াবহ সংন্কট গুলো নিরসন হবে বলে আমরা মনে প্রাণে বিশ্বাস করি।

অলি খানকে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য অনুরোধ করেন তাঁরা। সমাবেশে আগত সকলে তাদের এ প্রস্তাবের উপর পূর্ণ সমর্থন প্রদান করেন। বিশেষ অতিথি
অলি খান এ অনুরোধ কে শ্রদ্ধা ভরে গ্রহন করেন এবং তার দেয়া বক্তব্যে তিনি বলেন ;
যদি আমাকে আপনাদের মহা মূল্যবান ভোট দিয়ে বিসিএ সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত করেন তা হলে আমি আপনাদের গুরু দায়িত্ব পালন করতে অবহেলা করবো না। জীবনের সকল দক্ষতা অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে এ শিল্পের সকল ধরনের সমস্যা সমাধান করতে চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ।
তিনি বলেন ;
স্পাইসি বিজনেসের স্বপ্ন দ্রষ্টা হলেন  বৃটিশ বাংলাদেশী।  ১৯৫০ দশকে লন্ডন প্রবাসী বাংলাদেশী অভিবাসীদের মাধ্যমে এ বিজনেসের যাত্রা শুরু হয়। মুলত বৃটিশ বাংলাদেশী কমিউনিটির সকল সফলতার পিছনে রয়েছে এ শিল্পের যথেষ্ট অবদান। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য এ লাভজনক ইন্ডাস্ট্রির অস্তিত্ব নিয়ে উদ্বেগ উৎকন্ঠা সৃষ্টি হয়েছে।

বক্তৃতা গন তাদের বক্তব্যে বলেন ; এ শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে এদেশের নতুন প্রজন্মকে কেটারিং বিজনেসের সাথে সম্পৃক্ত করতে হবে। এই বিজনেসের অস্তিত্ব রক্ষা করতে হলে এরমধ্যে যত ধরনের অনিয়ম রয়েছে তা সংশোধন করে এই ইন্ডাস্ট্রিকে ঢেলে সাজাতে হবে। বৃটিশ বাংলাদেশী শিক্ষিত তরুণ সমাজ কেন এ বাণিজ্যেকে অপছন্দ করে? কেন এ সেক্টরে কাজ করতে চায় না। তার কারন
গুলো চিহ্নিত করে আমুল পরিবর্তন করতে না পারলে কর্মী সংন্কট মারাত্মক  আকার ধারণ করবে বলে অভিজ্ঞ মহলের ধারণা।

আর্কাইভ

June 2024
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930